গভীর রাতে বুড়িচং উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি!!ক্ষুব্ধ নেতা কর্মীরা

বুড়িচং উপজেলা ছাত্রলীগের দুই সদস্যের কমিটি ঘোষনা করেছে কুমিল্লা দ. জেলা ছাত্রলীগ। গভীর রাতে কমিটি ঘোষণার বিষয়টি প্রথমে নজরে আসে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু তৈয়ব অপির ফেইসবুক আই ডি থেকে। ঘোষিত কমিটির সভাপতি মো. গিয়াস উদ্দিন ও সাধারণ সম্পাদক হাসান আহম্মেদ সুমন বয়স্ক,অছাত্র,বিবাহিত বলে অভিযোগ করেছেন ক্ষুব্ধ নেতা কর্মীরা।
জানা যায়,দীর্ঘদিন ধরে বুড়িচং উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি নেই। ২০১৬ সালে একটি কমিটি ঘোষণা হলেও কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে তা বাতিল হয়ে যায়।
১ মে রবিবার কুমিল্লা দ. জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু তৈয়ব অপি ও সাধারণ সম্পাদক লোকমান হোসেন রুবেল এক বিজ্ঞপ্তিতে নতুন কমিটি ঘোষণা দেন।
রাতে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।
গভীর রাতে ইদের পূর্ব মুহূর্তে হঠাৎ করেই এ কমিটি ঘোষণায় অনেকেই ক্ষুব্ধ হয়ে উঠে।
রাতেই উপজেলা ছাত্রলীগের প্রভাবশালী নেতা আল আমিন ভুইয়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রতিবাদ জানান। তিনি বলেন ঘোষিত কমিটির সভাপতি বিবাহিত,অছাত্র এবং বয়স্ক।
সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেয়া ভোটার তালিকা অনুযায়ী নতুন সভাপতি মো. গিয়াস উদ্দিন এর বয়স ৩২ বছর। সে বিবাহিত বলেও উল্লেখ করা হয়।
অপরদিকে সাধারণ সম্পাদক হাসান আহম্মেদ সুমন এর জাতীয় পরিচয় পত্রের একটি কপি দেয়া হয়।তাতে জন্মতারিখ উল্লেখ করা হয় ৮মে ১৯৮৫। এবং সে মালদ্বীপ ফেরত বলেও উল্লেখ করা হয়।সে ২০১৯ সালে উম্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এসএসসি পাশ করে বলে উল্লেখ করে। সেখানে জন্মতারিখ লেখা হয় ৮ মে ১৯৯২।সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সার্টিফিকেটিও দেয়া হয়।
নেতাকর্মীদের সাথে আলাপকালে জানা যায় কমিটি গঠনের কোন প্রক্রিয়াই মানা হয়নি। সিভি সংগ্রহ করা হয়নি। গোপনে গভীর রাতে ফেইসবুকে কমিটি দেয়া হয়।
তারা কেন্দ্রীয় নেতাদের সুদৃষ্টি কামনা করেছেন।
এদিকে আজ সকাল থেকে আরেকটি পূর্নাঙ্গ কমিটির তালিকা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়।সেটির অনুমোদন দেয়া হয় ৩০ জুন ২০২১ সালে। তাতে জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের স্বাক্ষর থাকলেও সভাপতির স্বাক্ষর নেই।
নতুন কমিটির বিষয়ে জানতে কুমিল্লা জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু তৈয়ব অপির সংগে যোগাযোগ করা হলে তার মোবাইল বন্ধ পাওয়া যায়। হোয়াটসঅ্যাপ ও ম্যাসেন্জারেও পাওয়া যায়নি।
জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লোকমান হোসেন রুবেল বলেন- অভিযোগ সঠিক নয়। হয়তো এডিট করে দেয়া হয়েছে।২০২১ সালের কমিটির বিষয়ে বলেন এটিতে সভাপতির স্বাক্ষর ছিলনা। একজন স্বাক্ষরের কমিটি এতোদিন পর কেন? তিনি বলেন আমি জানিনা।তিনি নতুন কমিটি হলে আগের কমিটি বাতিল হয়ে যায়।

এদিকে কমিটি গঠনের বিষয়ে কুমিল্লা দ. জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ হোসেন ফেইসবুকে এ ঘটনায় রাজনৈতিক পরিস্হির অবনতি ঘটতে পারে বলে উল্লেখ করেন। হুবহু তার বক্তব্যটি তুলে ধরা হলো–
কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক লোকমান হোসেন রুবেল ৩০-০৬-২০২১ স্বাক্ষর করে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ বুড়িচং উপজেলা পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন করে,হঠাৎ আজ ০১-০৫-২০২২ (সোমবার) রাত ২.৩০ মিনিটে দুইটি নাম আবার পূণরায় ফেসবুকে স্টেটাস দেয় বুড়িচং উপজেলার ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদকের নাম প্রকাশ করা হয়।আর সভাপতির বয়স ন্যাশনাল আইডি কার্ডে ৩৭।আর সাধারন সম্পাদকের বয়স ৩২।এ বিষয়ে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের আমিও একজন সাবেক নেতা এবং আমার বাড়ি বুড়িচং উপজেলায়। আমি ছাত্রলীগের ৪ বছর সভাপতি ছিলাম।আমি বুড়িচং উপজেলার ১৩ বছর যুবলীগের সভাপতি ছিলাম।আমি বুড়িচং উপজেলার ১৭ বছর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ছিলাম।জেলা ছাত্রলীগের ৭ বছর সহ-সভাপতি ছিলাম।১৩ বছর জেলা যুবলীগের সহ-সভাপতি ছিলাম। বর্তমানে আমি দক্ষিণ জেলা আওয়ামিলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক।আমার বোধগম্য নয় রাতের ২ টা ৩০ মিনিটের সময় ১ টি কমিটির মেয়াদ থাকতে আরেকটি কমিটি কিভাবে দেওয়া হয়?এ বিষয় নিয়ে যে কোন সময় ছাত্রলীগের মধ্যে সম্পর্কের অবনতি হতে পারে।এতে দলের ক্ষতি হওয়ায় আশংকা প্রকাশ করছি।এ মর্মে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারন সম্পাদক মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে কথা বলে জরুরি ভিত্তিতে একটি সিদ্ধান্ত নেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

আরো পড়ুন: