লাকসাম-কুমিল্লা ডুয়েল গেজ লাইনে ট্রেন চলাচল উদ্বোধন

লাকসাম-কুমিল্লা ২৪ কিলোমিটার ডুয়েল গেজ লাইনে ট্রেন চলাচল উদ্বোধন করেছেন রেলমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম। আজ শনিবার দুপুর ১২টায় কুমিল্লা রেলস্টেশনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এর উদ্বোধন করা হয়। লাইনটি চালু হওয়ার ফলে যাত্রীদের গন্তব্যে পৌঁছাতে সময় কমবে। সেই সঙ্গে দুর্ঘটনাও কমে আসবে বলে আশা করা হচ্ছে।

রেলওয়ের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, লাকসাম-কুমিল্লা ডুয়েল গেজ লাইনে নির্মিত নতুন ভৌত অবকাঠামোর মাধ্যমে আপ ও ডাউন উভয় দিকে নিরবচ্ছিন্ন ট্রেন চলাচলের সুবিধা পাওয়া যাবে। এর ফলে আগের মতো কোনো স্টেশনে ট্রেন থামিয়ে ত্রুসিং করার প্রয়োজন হবে না। এতে লাকসাম-কুমিল্লা সেকশনে প্রায় ১৫-২০ মিনিট সময় সাশ্রয় হবে।

বিজ্ঞাপন
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ রেলওয়ের মহাপরিচালক ধীরেন্দ্র নাথ মজুমদার। প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন রেলমন্ত্রী মো. নূরুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন কুমিল্লা-৫ (বুড়িচং-ব্রাহ্মণপাড়া) আসনের সাংসদ আবুল হাসেম খান, রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সেলিম রেজা। আরও উপস্থিত ছিলেন রেলমন্ত্রীর সহধর্মিনী শাম্মী আক্তার, আখাউড়া-লাকসাম ডাবল লাইন প্রকল্পের পরিচালক শহিদুল ইসলাম ও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ম্যাক্সের পক্ষে গোলাম মোহাম্মদ আলমগীর, রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের কর্মকর্তা ও স্থানীয় প্রশাসনের কর্মকর্তারা।

রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম বলেন, ‘রেলব্যবস্থার উন্নয়ন ছাড়া যোগাযোগব্যবস্থার উন্নয়ন সম্ভব নয়। বর্তমান সরকার রেলপথ মন্ত্রণালয় গঠন করেছে। রেল আমাদের সম্পদ। এখনো ট্রেনে অনেক ঘাটতি। সরকার জনগণের কল্যাণে ভর্তুকি দিয়ে ট্রেন চালাচ্ছে। যাত্রীসুবিধা বাড়িয়েছে। রেলস্টেশন যুগোপযোগী করেছে। সরকার সিঙ্গেল লাইনকে ডাবল লাইন করছে। লাকসাম থেকে চট্রগ্রাম পর্যন্ত পরে ডাবল লাইন করা হবে।’ মন্ত্রী বলেন, ‘আমি তিন বছর ধরে রেলপথ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে। কুমিল্লা থেকে কেউ একজন বলেননি, কুমিল্লা-ঢাকা রেলপথ করা দরকার। ঢাকা থেকে নারায়ণগঞ্জ হয়ে কুমিল্লা দিয়ে ট্রেন এলে অন্তত ৭০ কিলোমিটার পথ কমবে।’

আখাউড়া-লাকসাম পুরো লাইন তৈরির কাজ শেষ হলে প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করবেন বলে জানান রেলমন্ত্রী। তিনি বলেন, ২০২৩ সালের জুন মাসে এই প্রকল্পের কাজ শেষ হবে।

আরো পড়ুন: